আজঃ শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৭ | ১২:২০ pm

ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু, ৫০ হাজার টাকায় রফা

নিজস্ব প্রতিবেদক

September 7, 2016 at 11:36 am, Last Update: September 7, 2016 at 6:38 am

jhinaidahঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু শহরের শিখা ক্লিনিকে ডাক্তারের ভুল অপারেশনে পলি খাতুন (২২) নামে এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে।

ডাক্তারের অবহেলার কারণে মৃত্যুর ঘটনা ধামাচাপা দিতে পঞ্চাশ হাজার টাকায় রফা হয়েছে। কোন মামলা বা ঝামেলা না করার শর্তে এই টাকা দেন ডা. আলমগীর।

ডা. আলমগীর পঞ্চাশ হাজার টাকা দিয়ে একটি মৃত্যু ধামাচাপা দিতে সমর্থ হন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে হরিণাকুন্ডু উপজেলা স্বাস্থ্য কমিটির সদস্য এম সাইফুজ্জামান বিষয়টি তদন্ত করার জন্য জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে হরিণাকুন্ডু হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. আলমগীর হোসেন আদৌ এ ধরণের অপারেশন করতে পারেন কিনা প্রশ্ন তোলা হয়েছে। তবে মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, হরিণাকুন্ডুর পারফলসি গ্রামের আবুল কালাম ওরফে কালুর স্ত্রী পলি খাতুন শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) সিজারের জন্য ভর্তি হন শিখা ক্লিনিকে। রাতেই অপারেশন করেন ডা. আলমগীর হোসেন। মধ্যরাতে ভালভাবে জ্ঞান ফিরে আসলে পলি খাতুনের অবস্থা সংকটাপন্ন হয়ে পড়ে। তখন তড়িঘড়ি করে তাকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন ডা. আলমগীর।

রোগীর স্বজনরা অভিযোগ করে বলেন, অপারেশনের সময় নাড়ি বা অন্য কোন শিরা কেটে ফেলার কারণে পলি খাতুনের মৃত্যু হয়েছে।

নিহত পলির স্বামী সাংবাদিককে জানান, মেডিকেল অফিসার ডা. আলমগীর হোসেন কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার না হলে তার অপারেশন করা আইনগত ভাবে অপরাধ। তদন্তপূর্বক তার শাস্তির দাবি করেন নিহতের স্বামী।

ঘটনার পর থেকেই ডা. আলমগীর হোসেন পলাতক রয়েছেন। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ফুসে উঠেছেন বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।

সূত্র : সিলেট টুডে

টুইটারে ফলো করুনঃ